আপনি কেমন মা?
লিখেছেন গাঙচিল, ডিসেম্বর 4, 2019 2:26 পূর্বাহ্ণ

সোশাল নেটওয়ার্কে ঢু মারতেই খুব কমন যেই দু’একটা বিষয়ে পোস্ট, ভিডিও বা গ্রুপ একটিভিটি চোখে পড়বেই তার মধ্যে একটা হলো “মা হওয়া” অথবা “সন্তান লালন পালন” রিলেটেড যাবতীয় জ্ঞান গর্ভ কথাবার্তা। তার পক্ষে বিপক্ষে নতুন পুরাতন মায়েদের সুখ – দুঃখ, ত্যাগ – তিতিক্ষা, ভালো লাগা – মন্দ লাগার অনুভুতির প্রকাশ। 

সেরকমই একটা ভিডিও দেখলাম একজন ডাক্তার আপার। যিনি একই সাথে ৩ বাচ্চার মা এবং প্রফেশনালি কাজও করছেন এই সেক্টরে। বলছি ডঃ সুষমা রেজা আপার কথা।
[ ভিডিওর লিঙ্ক দেয়া আছে]

https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=3209460442459246&id=1313158412089468

নতুন মা হওয়া বিষয়টা আসলেই যতখানি ভালো লাগার মাঝে মাঝে তার চেয়ে বেশী স্ট্রেসফুল। প্রথম সন্তানের মা হওয়ার পর সত্যি বলতে এরকম কোন স্ট্রেসই আমি ফিল করিনাই। ২য় সন্তানের জন্মের আগে থেকেই সেল্ফ মটিভেশন আর অটোসাজেশন দিতে থাকি নিজেকে যে আমাকে শারীরিক আর মানসিকভাবে কাল্ম আর স্টেবল হয়ে সবাইকে আস্থা দিতেই হবে যে আমি ইনশাল্লাহ পারবো।
বাই দা টাইম — একের পর এক চ্যালেঞ্জ!!!
এখন একজন প্রায় সাড়ে তিন বছর আরেকজন প্রায় এক বছর।
২ জনই বড় হচ্ছে, শারীরিক, মানসিক চাহিদার বিস্তর ফারাক!!!

স্লিপ সাইকেল ডিফরেন্ট। খাবার মেন্যু ডিফরেন্ট, শাওয়ার ক্লিনিং, ইন্টারেস্ট সওওব আলাদা। এইসব ডিমান্ড ফিল আপ হওয়ার পর নিজের জন্য সময় বের করা?!!!!!

কয়েক সময় যে চাপ নিয়ে খুউউব ভালো মা হওয়ার চেষ্টা করিনি, তা নয়। যাকে বলে পারফেক্ট “মা”!!!

কিন্তু ফিডব্যাক খুউউব একটা আশাব্যঞ্জক না হওয়ায় আমি ” আমিই” হয়ে থাকার সিদ্ধান্ত নিলাম। বিশেষ করে – একটার বেশী বাবু যাদের আছে, তারা বুঝবেন কিছু – কিছু সময় – নাহ একচুয়ালি প্রত্যেকটা সময়, প্রত্যেকটা বেলা, প্রত্যেকটা দিন, প্রত্যেকটা কাজ– কতটা টায়ারিং, কতটা ধৈর্যের!!!

কিন্তু আমার ঘুম, নামায – কুরআন , বই পড়া, চা খাওয়া, রোযা রাখা, ব্যক্তিগত কোন কাজ, কোন লেকচার শোনা, পড়াশোনা, ইন্টারনেট ব্রাইজিং, গান শোনা, মুভি দেখা, প্রফেশন বা ব্যাক্তিগত কাজে বাহিরে যাওয়া, এক্সারসাইজ করা এই সময়গুলা ফিক্স।

এই সময়গুলাতে ওদের কেয়ার গিভার অন্য কেউ..

মানুষ কথা বলে কিনা??
বলে….
বাচ্চা শুকনা কেন???
একশো এক রকম রকমারী খাবার রান্না করে খাওয়াও না কেন??
বাচ্চা বড় হয় না কেন??
বাচ্চা রাতে ঘুমায়না কেন??
বাচ্চা কান্দে কেন???
বাচ্চা এত জিদ করে কেন??
এটেনশন না দিলে – “দেওনা কেন??”
আর দিলে – “দাও কেন??”
বাচ্চাকে সময় কম দাও কেন??
বাচ্চাকে শাষন করোনা কেন??
বাচ্চাকে এত আহ্লাদ দাও কেন??

এত এত ভুল আর ব্যর্থতা আমার??????

অথচ আমি টেম্পার লুস করি দিনে ১/২ বার। ওদের ট্যানট্রাম ইগনোর করতে শক্ত হয়ে থাকি বহুবার। মাঝে মাঝে আমাদের মায়েদের ট্রেডিশনাল স্টেপ ফলো করে রান্নাঘর থেকে ভাতের কাঠিও চিনিয়েছি।

এতকিছুর পরও যখন আমার সাড়ে তিন বছরের ছেলেকে যখন জিজ্ঞেস করছি- আম্মুর কোন জিনিষটা তোমার ভালো লাগে?
সে ভেবে চিন্তে উত্তর দেয় – তার সাথে কথা বলা, আমার সাজুগুজু করা আর গান গাওয়া তার সবচেয়ে ভালো লাগে।
ভাববার বিষয়, তাইনা???

আসলেই কি ” আমি জিতলে জিতে যায় মা!!”
নাহ্ —

আমিও বিশ্বাস করি ” মা ভালো থাকলেই ভালো থাকি আমি!!”

Facebook Comments
পোস্টটি ৬০৬ বার পঠিত
 ০ টি লাইক
০ টি মন্তব্য

আপনার মুল্যবান মন্তব্য করুন

Facebook Comment